বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৫:৪৪ পূর্বাহ্ন

Notice :
প্রকাশ্যে ধূমপান করে তোপের মুখেপড়া এক তরুণীর ভিডিও ভাইরাল।চরমোনাই পীরের ওয়াজ মাহফিল বাতিল।বিএনপির কোনো নেতাকর্মী যেন পদ্মা সেতু পার না হয় বললেন শাজাহান খান।জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য অনুযায়ী, ভাতাপ্রাপ্ত প্রায় দুই হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধার বয়স ৫০–এর নিচে।করোনা আক্রান্ত কনের অভিনব পদ্ধতিতে বিয়ে (ভিডিও)আবাসিক হোটেলে জনপ্রিয় অভিনেত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ।পুলিশে হঠাৎ বড় রদবদল।ইউটিউবে যাত্রা শুরু করছেন মিজানুর রহমান আজহারী।
সর্বশেষ সংবাদ :
চরমোনাই’র মাহফিল শুরু’ মুসুল্লিদের ঢল। আজকের ক্রাইম-নিউজ পিরোজপুরে মসজিদের পাইলিং টাওয়ার নিচে পড়ে শ্রমিক নিহত। আজকের ক্রাইম-নিউজ কন্যা সন্তান বোঝা নয়, আশীর্বাদ”- পুলিশ সুপার, চুয়াডাঙ্গা। আজকের ক্রাইম-নিউজ জাপা রাজনীতির মাঠে পরগাছা হয়ে থাকবে না : জিএম কাদের। আজকের ক্রাইম-নিউজ নাসিরের স্ত্রী তামিমার তালাকনামা প্রকাশ। আজকের ক্রাইম-নিউজ রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত। আজকের ক্রাইম-নিউজ নতুন প্রজন্মের প্রথম ভোট উন্নয়ন এর মার্কা নৌকায় হোক রাজিহার স্মার্ট কার্ড বিতরণ। আজকের ক্রাইম-নিউজ ৮ ব্যাংকে অফিসার পদে ২৪৭৮ জনের চাকরির সুযোগ। আজকের ক্রাইম-নিউজ এবার সায়েন্সল্যাব মোড়ও বন্ধ করে দিলেন শিক্ষার্থীরা। আজকের ক্রাইম-নিউজ টিকা নিলেন শেখ রেহানা। আজকের ক্রাইম-নিউজ
অফিসে না গিয়েও উপস্থিত খাতায়, সাবরিনার ওপর ডা. মিলনের ছায়া। আজকের ক্রাইম-নিউজ

অফিসে না গিয়েও উপস্থিত খাতায়, সাবরিনার ওপর ডা. মিলনের ছায়া। আজকের ক্রাইম-নিউজ

অনলাইন ডেস্ক

দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগকে অনিয়মের স্বর্গরাজ্য করে রেখেছেন ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী। আর ছায়া হয়ে পাশে থেকেছেন ‘ইউনিট প্রধান’ ডা. কামরুল হাসান মিলন। তাদের অনিয়মে অতিষ্ঠ হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও।

এখন কেঁচো খুঁড়তে বেরিয়ে আসছে সাপ।

পদে না থেকেও কার্ডিয়াক সার্জারির বিভাগীয় প্রধানের কক্ষটি দীর্ঘদিন ধরে দখলে রেখেছেন ‘ইউনিট প্রধান’ কামরুল হাসান মিলন।

নিজের নামের পাশেও লিখে রেখেছেন বিভাগীয় প্রধান। বাধ্য হয়ে বর্তমান বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক রামাপদ সরকার ছোট একটি কক্ষে নেমপ্লেট লাগিয়ে কোনোমতে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।
জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের একটি ইউনিটের প্রধানের দায়িত্বে আছেন ডা. কামরুল হাসান মিলন।

তার অধীনেই রেজিস্ট্রার চিকিৎসক হিসেবে কাজ করতেন ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী। অভিযোগ রয়েছে, মিলনের ছত্রছায়াতেই অনিয়মের চূড়ায় উঠেছিলেন সাবরিনা। সাবরিনা দিনের পর দিন কাজ না করেই নিতেন বেতন। ডা. মিলনের সুনজরে থাকায় অনুপস্থিত থাকার পরও নাম উঠে যেত হাজিরা খাতায়। একজন স্টাফ জানান, ওনাকে একদিনও আমি দেখিনি।
এ বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি হননি ডা. কামরুল হাসান মিলন। মিলন বলেন, পরিচালক সাহেব বলেছেন, মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলার আগে তাকে জানাতে।

এদিকে সাবরিনা-মিলনের ঘনিষ্ঠতায় চটে গিয়েছিলেন সাবরিনার স্বামী আরিফ চৌধুরীও। এ নিয়ে হাসপাতালের ভেতরেই মিলনের সঙ্গে বিবাদেও জড়ায় জেকেজি কর্নধার আরিফ। এ ঘটনায় জিডিও হয় থানায়।

এ প্রসঙ্গে সাবরিনা বলেন, যদি এরকম কোনো সম্পর্ক হত, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমার বিরুদ্ধে মামলাই করত।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019
Bengali English