২০ মে ২০২৪, ০৪:১০ অপরাহ্ন, ১১ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি, সোমবার, ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নোটিশ
জরুরী ভিত্তিতে কিছুসংখ্যক জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ- ০১৭১২৫৭৩৯৭৮
সর্বশেষ সংবাদ :
ঢাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশা চলবে: প্রধানমন্ত্রী ইরানে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, প্রেসিডেন্ট রাইসির লাশ উদ্ধার বানারীপাড়ায় শিক্ষাই শক্তি সংগঠনের উদ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা সুন্দরগঞ্জে ইটভাটায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ভাটা বন্ধের নির্দেশ নির্বাচন এলে ধর্মের দোহাই দিয়ে ধুমকেতুর মতো যাদের আগমন ঘটে তাদের সর্বত্র বর্জন করুন অভিনেত্রীর মৃত্যুর শোক সইতে না পেরে স্বামীর আত্মহত্যা চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান সুন্দরগঞ্জে বাধার মুখে মডেল মসজিদের নির্মাণ কাজ পটুয়াখালীতে ফোন চাওয়ায় মায়ের বকাঝকা, এসএসসি পাস শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা আগৈলঝাড়ায় শুক্রবার রাতে স্কুল ছাত্রী ও গৃহবধুর আত্মহত্যা
বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ রোগীর টাকা ও স্বর্ণালংকার ছিনতাই চক্রের দুই সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ রোগীর টাকা ও স্বর্ণালংকার ছিনতাই চক্রের দুই সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

আজকের ক্রাইম ডেক্স::
বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে রোগীর টাকা ও স্বর্ণালংকার ছিনতাই চক্রের দুই সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে হাসপাতালের নীচ তলায় টিকেট কাউন্টারের সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলো- ছিনতাই চক্রের হোতা হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণি স্টাফ কোয়ার্টার সংলগ্ন চরেরবাড়ির বাসিন্দা আবুল হোসেন এর স্ত্রী ঝর্ণা বেগম ও মাদারীপুরের বাসিন্দা সুমন হোসেনের স্ত্রী সুমি বেগম (২২)।

শেবাচিম হাসপাতালের গার্ড রুমের দায়িত্বে থাকা কোতয়ালী মডেল থানার এসআই নাজমুল ইসলাম জানান, ‘নগরীর রূপাতলী এলাকার সুমি আক্তার চিকিৎসা নেয়ার জন্য হাসপাতালে আসেন। লাইনে দাড়িয়ে টিকেট কাটার সময় সুমি নামের ছিনতাইকারী তার ব্যাগ খোলার চেষ্টা করলে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ছিনতাইকারী সুমিকে হেফাজতে নেয়।

এসআই নাজমুল জানিয়েছেন, সুমির স্বীকারক্তি অনুযায়ী ছিনতাই চক্রের নিয়ন্ত্রক ঝর্ণা বেগম নামের নারীকে হাসপাতালের বহিঃর্বিভাগ থেকেই আটক করা হয়েছে। তাদের দু’জনকেই কোতয়ালী মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

আটককৃত সুমি জানিয়েছে, ‘সে দীর্ঘ দিন ধরেই হাসপাতালে রোগীর টাকা এবং স্বর্ণালংকার ছিনতাই চক্রের সাথে জড়িত। প্রতিদিন ৫/৭ হাজার টাকা ছিনতাই করেন। তবে হাসপাতালে প্রবেশ করতে হলেই ২ হাজার টাকা দিতে হয় ঝর্ণাকে। আর স্বর্ণালংকার পেলে তারও ভাগ নেয় ঝর্ণা। এই চক্রের সঙ্গে আরো বেশ কয়েকজন জড়িত। তাদের সবাইকেই পরিচালনা করে ঝর্ণা।

তবে ঝর্ণার দাবি সে হাসপাতালে রোগীর দালালী করেন। ছিনতাই চক্রের ব্যাপারে তিনি কিছু জানেন না এবং এর সাথে তিনি জড়িতও নন।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019