রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন

Notice :
প্রকাশ্যে ধূমপান করে তোপের মুখেপড়া এক তরুণীর ভিডিও ভাইরাল।চরমোনাই পীরের ওয়াজ মাহফিল বাতিল।বিএনপির কোনো নেতাকর্মী যেন পদ্মা সেতু পার না হয় বললেন শাজাহান খান।জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য অনুযায়ী, ভাতাপ্রাপ্ত প্রায় দুই হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধার বয়স ৫০–এর নিচে।করোনা আক্রান্ত কনের অভিনব পদ্ধতিতে বিয়ে (ভিডিও)আবাসিক হোটেলে জনপ্রিয় অভিনেত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ।পুলিশে হঠাৎ বড় রদবদল।ইউটিউবে যাত্রা শুরু করছেন মিজানুর রহমান আজহারী।
সর্বশেষ সংবাদ :
বরিশালে শরীরে অক্সিজেন সিলিন্ডার বেঁধে রোগী নিয়ে হাসপাতালে। স্থগিত নির্বাচনী এলাকায় বর্তমান চেয়ারম্যান-মেম্বাররাই দায়িত্ব পালন করবেন। বরিশালের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক কাজী আজাদের মৃত্যুতে বানারীপাড়া প্রেস ক্লাবের শোক। রাতে কালবৈশাখী ঝড়ের আভাস। চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুলের রোগমুক্তি কামনায় হেফাজতের ঢাকা মহানগর সভাপতি জুনায়েদ গ্রেফতার। পাত্তাই দিচ্ছে না কেউ ভয়ংকর করোনাকে। সিলেটের করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু !! ক্রমেই বাড়ছে করোনার সংক্রামন। বাবুগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল কালো বাজারে বিক্রির অভিযোগ। বাবুগঞ্জে গৃহবধুর লাশ হাসপাতালে রেখে পালাল স্বামী।
সিলেটে গোলাপগঞ্জে ৬ মাস ধরে এলপি গ্যাস বটলিং কারখানা বন্ধ। আজকের ক্রাইম-নিউজ

সিলেটে গোলাপগঞ্জে ৬ মাস ধরে এলপি গ্যাস বটলিং কারখানা বন্ধ। আজকের ক্রাইম-নিউজ

আবুল কাশেম রুমন,সিলেট: সিলেটে বেড়েছে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডারে দাম। বিপাকে বড়েছেন এলপি গ্যাস ব্যবহারি নি¤œ আয়ের লোকজন। সিলেটে গোলাপগঞ্জে ৬ মাস ধরে এলপি গ্যাস বটলিং কারখানা বন্ধ থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা যায়। এ কারখানা থেকে ¯^ল্প আয়ের লোকজন মাত্র ৬শ’ টাকা মূল্যে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার কিনতে পারতেন। গোলাপগঞ্জ চৌমুহনী সংলগ্ন টিকরবাড়ি এলাকায় ১৯৯৭ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে স্থাপিত হয় কৈলাশটিলা এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্ট। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি) এর একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান এটি। প্ল্যান্টটির বার্ষিক উৎপাদন ¶মতা ১০ হাজার মেট্রিক টন। এ প্ল্যান্ট থেকে প্রতিদিন উৎপাদন হতো ৩ হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজার সিলিন্ডার। প্রতিষ্ঠানটি প্রতি মাসে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে কেবল কর বাবদ জমা দিতো প্রায় ১৫ ল¶ টাকা। কর ব্যয় বাদে প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক মুনাফা ছিল ৭/৮ কোটি টাকা। এখন উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সরকার বিপুল পরিমাণ রাজ¯^ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রতিষ্ঠানটির পাশেই স্থাপিত আরপিজিসিএল (রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানী) এর কেটিএল প্ল্যান্ট হতে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর থেকে এলপি গ্যাসের সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এরপর এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্টের উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। কর্মচঞ্চল প্রতিষ্ঠানটিতে এখন শুনশান নিরবতা। প্রতিদিন যেখানে ট্রাক লরির আসা যাওয়া, শ্রমিকদের হাকডাকে মুখরিত হয়ে থাকতো; সেই প্রতিষ্ঠানে এখন ভুতুড়ে পরিবেশ। তারা বলেন, এই কারখানা একদিন বন্ধ হলেই হুলস্থুল পড়ে যেতো, এখন ৬ মাসের অধিক সময় থেকে বন্ধ হয়ে থাকলেও কারো কোন ভ্রæ¶েপ নেই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, পেট্রোবাংলার সহযোগী প্রতিষ্ঠান আরপিজিসিএল প্ল্যান্টটি পাশের অপর প্রতিষ্ঠান কৈলাশটিলা এমএসটিই গ্যাস ফিল্ডে খনি থেকে উত্তোলিত এনজিএল (ন্যাচারাল গ্যাস লিকুইউ) থেকে এলপি গ্যাস ও পেট্রোল উৎপাদন করতো। এখন বিপিসি পেট্রোল না নেয়ায় আরপিজিসিএল এর উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে পেট্রোলের পাশাপাশি এলপি গ্যাস উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। অপরদিকে সংর¶ণের সুযোগ না থাকায় প্রতিদিন প্রায় ২০ ল¶ টাকার এনজিএল পুড়িয়ে ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

গোলাপগঞ্জ এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্টের উপমহাব্যবস্থাপক প্রকৌশলী আব্দুল মুনিম খান জানান, সরকারের একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্ট। কিন্তু, ৬ মাসের উপরে প্রতিষ্ঠানটির উৎপাদন বন্ধ। আরপিজিসিএল থেকে এলপি গ্যাস সরবরাহ না পেয়ে তাদের উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। কবে নাগাদ প্ল্যান্টটি চালু হতে পারে-এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপ¶ ভালো বলতে পারবেন।

জানা গেছে, এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্ট থেকে প্রতিদিন স্থানীয় ¯^ল্প আয়ের ৫০/৬০টি পরিবারকে সিলিন্ডার গ্যাস ¯^ল্পমূল্যে দেয়া হতো। জাতীয় পরিচয়পত্র সাপে¶ে আর্থিক অবস্থা বিবেচনায় এসব পরিবারকে ৬শ’ টাকায় সাড়ে ১২ কেজি গ্যাস সিলিন্ডার দেয়া হতো। এখন সিলিন্ডার না পেয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন তারা । স্থানীয় ¯^ল্প আয়ের গ্রাহক আয়শা সিদ্দিকা, মেহেরুন নেছা, মিছবাহ উদ্দিন, কামরুল ইসলামসহ আরো কয়েক জন জানান, এমনিতেই তাদের পরিবারে আর্থিক অনটন। তার উপর এখন সিলিন্ডার ক্রয় করতে হচ্ছে অতিরিক্ত টাকায়। প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় ৬শ’ টাকার সিলিন্ডার গ্যাস ক্রয় করতে পারতেন। এখন তাদের ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকায় ক্রয় করতে হচ্ছে। তারা বলেন, এমনিতেই করোনার কারণে চাপের মধ্যে আছেন। তার উপর ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় তাদের দিশেহারা অবস্থা। না খেয়েতো আর থাকা যায় না। তাই অতিরিক্ত টাকা খরচ করেও গ্যাস সিলিন্ডার ক্রয় করতে হচ্ছে।সিলেটে গোলাপগঞ্জে ৬ মাস ধরে এলপি গ্যাস বটলিং কারখানা বন্ধ

আবুল কাশেম রুমন,সিলেট: সিলেটে বেড়েছে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডারে দাম। বিপাকে বড়েছেন এলপি গ্যাস ব্যবহারি নি¤œ আয়ের লোকজন। সিলেটে গোলাপগঞ্জে ৬ মাস ধরে এলপি গ্যাস বটলিং কারখানা বন্ধ থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা যায়। এ কারখানা থেকে ¯^ল্প আয়ের লোকজন মাত্র ৬শ’ টাকা মূল্যে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার কিনতে পারতেন। গোলাপগঞ্জ চৌমুহনী সংলগ্ন টিকরবাড়ি এলাকায় ১৯৯৭ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে স্থাপিত হয় কৈলাশটিলা এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্ট। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি) এর একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান এটি। প্ল্যান্টটির বার্ষিক উৎপাদন ¶মতা ১০ হাজার মেট্রিক টন। এ প্ল্যান্ট থেকে প্রতিদিন উৎপাদন হতো ৩ হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজার সিলিন্ডার। প্রতিষ্ঠানটি প্রতি মাসে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে কেবল কর বাবদ জমা দিতো প্রায় ১৫ ল¶ টাকা। কর ব্যয় বাদে প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক মুনাফা ছিল ৭/৮ কোটি টাকা। এখন উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সরকার বিপুল পরিমাণ রাজ¯^ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রতিষ্ঠানটির পাশেই স্থাপিত আরপিজিসিএল (রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানী) এর কেটিএল প্ল্যান্ট হতে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর থেকে এলপি গ্যাসের সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এরপর এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্টের উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। কর্মচঞ্চল প্রতিষ্ঠানটিতে এখন শুনশান নিরবতা। প্রতিদিন যেখানে ট্রাক লরির আসা যাওয়া, শ্রমিকদের হাকডাকে মুখরিত হয়ে থাকতো; সেই প্রতিষ্ঠানে এখন ভুতুড়ে পরিবেশ। তারা বলেন, এই কারখানা একদিন বন্ধ হলেই হুলস্থুল পড়ে যেতো, এখন ৬ মাসের অধিক সময় থেকে বন্ধ হয়ে থাকলেও কারো কোন ভ্রæ¶েপ নেই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, পেট্রোবাংলার সহযোগী প্রতিষ্ঠান আরপিজিসিএল প্ল্যান্টটি পাশের অপর প্রতিষ্ঠান কৈলাশটিলা এমএসটিই গ্যাস ফিল্ডে খনি থেকে উত্তোলিত এনজিএল (ন্যাচারাল গ্যাস লিকুইউ) থেকে এলপি গ্যাস ও পেট্রোল উৎপাদন করতো। এখন বিপিসি পেট্রোল না নেয়ায় আরপিজিসিএল এর উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে পেট্রোলের পাশাপাশি এলপি গ্যাস উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। অপরদিকে সংর¶ণের সুযোগ না থাকায় প্রতিদিন প্রায় ২০ ল¶ টাকার এনজিএল পুড়িয়ে ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

গোলাপগঞ্জ এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্টের উপমহাব্যবস্থাপক প্রকৌশলী আব্দুল মুনিম খান জানান, সরকারের একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠান এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্ট। কিন্তু, ৬ মাসের উপরে প্রতিষ্ঠানটির উৎপাদন বন্ধ। আরপিজিসিএল থেকে এলপি গ্যাস সরবরাহ না পেয়ে তাদের উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। কবে নাগাদ প্ল্যান্টটি চালু হতে পারে-এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপ¶ ভালো বলতে পারবেন।

জানা গেছে, এলপি গ্যাস বটলিং প্ল্যান্ট থেকে প্রতিদিন স্থানীয় ¯^ল্প আয়ের ৫০/৬০টি পরিবারকে সিলিন্ডার গ্যাস ¯^ল্পমূল্যে দেয়া হতো। জাতীয় পরিচয়পত্র সাপে¶ে আর্থিক অবস্থা বিবেচনায় এসব পরিবারকে ৬শ’ টাকায় সাড়ে ১২ কেজি গ্যাস সিলিন্ডার দেয়া হতো। এখন সিলিন্ডার না পেয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন তারা । স্থানীয় ¯^ল্প আয়ের গ্রাহক আয়শা সিদ্দিকা, মেহেরুন নেছা, মিছবাহ উদ্দিন, কামরুল ইসলামসহ আরো কয়েক জন জানান, এমনিতেই তাদের পরিবারে আর্থিক অনটন। তার উপর এখন সিলিন্ডার ক্রয় করতে হচ্ছে অতিরিক্ত টাকায়। প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় ৬শ’ টাকার সিলিন্ডার গ্যাস ক্রয় করতে পারতেন। এখন তাদের ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকায় ক্রয় করতে হচ্ছে। তারা বলেন, এমনিতেই করোনার কারণে চাপের মধ্যে আছেন। তার উপর ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় তাদের দিশেহারা অবস্থা। না খেয়েতো আর থাকা যায় না। তাই অতিরিক্ত টাকা খরচ করেও গ্যাস সিলিন্ডার ক্রয় করতে হচ্ছে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019
Bengali English