২৩ Jul ২০২৪, ০৬:১৭ অপরাহ্ন, ১৬ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি, মঙ্গলবার, ৮ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নোটিশ
জরুরী ভিত্তিতে কিছুসংখ্যক জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ- ০১৭১২৫৭৩৯৭৮
অসহায় দারিদ্র প্রতিবন্ধী সোহেলের একটি ঘরের আশায় আর্তনাদ।

অসহায় দারিদ্র প্রতিবন্ধী সোহেলের একটি ঘরের আশায় আর্তনাদ।

মোঃনাঈম মোঘল বানারীপাড়া থেকে:: বানারীপাড়ায় হতদরিদ্র প্রতিবন্ধী সোহেল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার আশ্রয়ন প্রকল্পের একটি ঘরের আশায় দু বছর যাবত বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন। অভিযোগ সূত্রে জানা যায় মোহাম্মদ সোহেল পিতা মোহাম্মদ আখতার হোসেন বানারীপাড়া সদর ইউনিয়নের আলতা গ্রামে বসবাস করছেন তিনি একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী পঙ্গু ঠিকমত চলাফেরা করতে পারেন না। তিনি তার স্ত্রী ও সাত বছরের মেয়েকে নিয়ে চটপটি বিক্রি করে কোনভাবে জীবিকা নির্বাহ করছেন কোন স্থানে জমি ক্রয় করে ঘর উঠাবার ক্ষমতা তার নেই। গত চার পাঁচ দিন যাবত সোহেলকে বানারীপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর অফিস কক্ষের সামনে একটি দরখাস্ত নিয়ে ঘুরতে দেখা যায় বিষয়টি জানতে চাইলে সোহেল বলেন আমি বিগত দু’বছর যাবত এর দুয়ারে ওর দুয়ারে একটি ঘরের জন্য আবেদন করে যাচ্ছি কিন্তু সাবেক এমপি মহোদয় আমাকে একটি ঘর দেওয়ার জন্য সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে সুপারিশ করেন এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার আমাকে ঘর দেওয়ার জন্য আশ্বস্ত করেন কিন্তু আমি আজওঅব্দি পাইনি আমি দেখতেছি আলতা আশ্রয়ন প্রকল্পে বিভিন্ন লোক অবৈধভাবে ঘরে উঠে বসেছে গায়ের জোরে তারা ঘর দখল করে আছেন অথচ তাদের কোন সরকারি বৈধ কাগজপত্র নেই। অথচ আমি একজন পঙ্গু মানুষ আমার সকল কাগজপত্র সঠিক থাকার পরেও একটি ঘর পাচ্ছি না কারণ আমার টাকা নেই পেশিশক্তি নেই আমি ভূমি অফিসে হাজার বার গিয়েও এর থেকে পরিত্রান পাইনি। আমি বর্তমান উপজেলা নির্বাহী স্যারকে বিষয়টি জানিয়েছি তিনি লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছেন আপনারা গণমাধ্যমে যারা কাজ করেন তারা একটু দেখবেন আলতা আবাসনে বর্তমান ঘর নাম্বার ৪৪, ৮৩, ১০২, ১১৩ , ১১৮, ১২৩ এই ঘরগুলোতে যারা বসবাস করছেন তাদের কোন বৈধ কাগজপত্র আছে কিনাএবং উত্তর পাড় আশ্রয়ন প্রকল্পে পৌরসভায় যাদের ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে অধিকাংশই বানারীপাড়া পৌরসভায় বাড়ি আছে অনেকে পাঁচ তলা ভবনে ভাড়া থাকেন অথচ আমাদের মাথা গুজবার পা রাখার জায়গা নেই খবর নিলে দেখতে পারবেন তারা ভূমি অফিস কিংবা কোন স্থানীয় নেতার হাতে মোট অংকের টাকা দিয়ে উঠেছেন আমি স্যারকে বিষয়টি বলেছি তিনি বলেছেন তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ডাক্তার অন্তরা হালদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন বিষয়টি আমার জানা ছিল না কেউ অভিযোগ করেনি এখন অভিযোগ পেয়েছি সঠিক তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে সরকারি সম্পত্তি অবৈধ ভাবে দখল করে রাখার কারো কোন নিয়ম নেই বিধি অনুযায়ী সঠিক প্রমাণ হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সোহেলের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন তার ঘরের আবেদন করা থাকলে তাকে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে। এদিকে সোহেলকে ৪-৫ দিন বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরতে দেখায় সামাজিক মাধ্যমে একটি প্রশ্ন উঠেছে যেখানে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিশালের বানারীপাড়া থানা কে ১০০% ভূমিহীন ঘোষণা করেছেন সেখানে একজন প্রতিবন্ধী পঙ্গু মানুষ কিভাবে ভূমিহীন থাকে এটি এখন জনমানেরও প্রশ্ন এবং এটা আমাদের সমাজের বিবেকের অবক্ষয়।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019