বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৩৩ পূর্বাহ্ন

Notice :
প্রকাশ্যে ধূমপান করে তোপের মুখেপড়া এক তরুণীর ভিডিও ভাইরাল।চরমোনাই পীরের ওয়াজ মাহফিল বাতিল।বিএনপির কোনো নেতাকর্মী যেন পদ্মা সেতু পার না হয় বললেন শাজাহান খান।জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য অনুযায়ী, ভাতাপ্রাপ্ত প্রায় দুই হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধার বয়স ৫০–এর নিচে।করোনা আক্রান্ত কনের অভিনব পদ্ধতিতে বিয়ে (ভিডিও)আবাসিক হোটেলে জনপ্রিয় অভিনেত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ।পুলিশে হঠাৎ বড় রদবদল।ইউটিউবে যাত্রা শুরু করছেন মিজানুর রহমান আজহারী।
সর্বশেষ সংবাদ :
দেবরের লাগাতার ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা প্রবাসীর স্ত্রী, অবশেষে বাড়ি ছাড়া। আজকের ক্রাইম-নিউজ বিয়েপাগল’ স্বামীর ‘বিশেষ অঙ্গ’ কাটলেন স্ত্রী। আজকের ক্রাইম-নিউজ ৪৫ কিশোরীকে ধর্ষণ: স্বামীর মৃত্যুদণ্ড, স্ত্রীর যাবজ্জীবন। আজকের ক্রাইম-নিউজ সৌখিন শিকারির বড়শিতে উঠল বিশাল বোয়াল মাছ। আজকের ক্রাইম-নিউজ বিশ্বের ৩ দেশে যাচ্ছে মেহেরপুরের সবজি। আজকের ক্রাইম-নিউজ তিতুদহের আড়িয়া গ্রামের প্রেমিকাদের সাথে দেখা করতে গিয়ে ৩ যুবক গ্যাঁড়াকলে: আজকের ক্রাইম-নিউজ মহেশপুর ব্যাটালিয়ন (৫৮বিজিবি) কর্তৃক মাদকদ্রব্য ধ্বংসকরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত: আজকের ক্রাইম-নিউজ যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম মুসলিম অ্যাটর্নি হচ্ছেন সায়মা। আজকের ক্রাইম-নিউজ বাইডেন প্রশাসনে নরসিংদীর ফারাহ। আজকের ক্রাইম-নিউজ নৌকা সমর্থক-পুলিশ-বিদ্রোহী আ’লীগ ত্রিমুখী সংঘর্ষ: আহত অর্ধশতাধিক। আজকের ক্রাইম-নিউজ
চুয়াডাঙ্গা অনেক পরিবর্তন হয়েছে। শুধু পরিবর্তন হয়নি খেজুরের রস সংগ্রহ।

চুয়াডাঙ্গা অনেক পরিবর্তন হয়েছে। শুধু পরিবর্তন হয়নি খেজুরের রস সংগ্রহ।

মোঃ আমিনুল ইসলাম/মিজানুর রহমান/দামুড়হুদা, দর্শনা প্রতিনিধি::-

চুয়াডাঙ্গা জেলায় বাঙালির শীতের দিনের অন্যতম আকর্ষণ খেজুর গুড়ের তৈরি পিঠা-পায়েশ। প্রাচীন কাল থেকে অবিভক্ত ভারতের খেজুর গুড়ের জন্য বাংলাদেশ বিখ্যাত ছিল। এজন্য একটি প্রবাদ প্রচলিত আছে বাংদেশের খেজুরের রস। দিন বদলের সাথে সাথে চুয়াডাঙ্গা অনেক পরিবর্তন হয়েছে। শুধু পরিবর্তন হয়নি খেজুরের রস সংগ্রহ এবং গুড়-পাটালি তৈরী পদ্ধতি। শীত মৌসুমের আগমনে গাছিরা খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করার জন্য প্রাথমিকভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছে।
চুয়াডাঙ্গা জেলা সহ ইতোমধ্যে গাছিরা খেজুর গাছ তোলা, চাচার, নলি, মাথা পরিস্কার কাজ শুরু করেছে। অল্পদিনের মধ্যেই গৌরব আর ঐতিহ্যের প্রতিক মধুবৃক্ষ থেকে সুমধুর রস বের করে গ্রামের ঘরে ঘরে শুরু হবে গুড়-পাটালি তৈরির উৎসব। গ্রামে গ্রামে খেজুরের রস জ্বালিয়ে পিঠা, পায়েশ, মুড়ি-মুড়কী ও নানা রকমের মুখরোচক খাবার তৈরি করার ধুম পড়বে। সকালে এবং সন্ধায় কাঁচা রস খেতে খুবই মজদার। রসে ভেজা কাচি খোসা পিঠার, চিতই পিঠার স্বাদই আলাদা। নলে জোড়া ও দানা গুড়ের সুমিষ্ট গন্ধেই যেন অর্ধ ভোজন। রসনা তৃপ্তিতে এর জুড়ি নেই। চুয়াডাঙ্গার ঐতিহ্যবাহী গুড়-পাটালির ইতিহাস অনেক প্রাচীন। বৃটিশ আমলে খেজুর গুড় থেকে চিনি তৈরি করা হতো। এই চিনি ব্রাউন সুগার নামে পরিচিত ছিল। খেজুরের রস থেকে উন্নতমানের মদও তৈরি করা হতো। এই চিনি ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চালান যেতো।
১৮৯০ সালের দিকে আখ থেকে সাদা চিনি উৎপাদন শুরু হলে খেজুর গুড় থেকে তৈরি চিনির উৎপাদনে ধস নামে। একে একে কারখানাগুলো বন্ধ হয়ে যায়। খেজুরের গুড় থেকে চিনি তৈরি না হলেও এখন পর্যন্ত বাঙ্গালির কাছে খেজুর গুড়-পাটালির কদর কমেনি। তবে বিজ্ঞানের এই যুগে এখনো রস থেকে গুড়-পাটালি তৈরিতে মান্ধাতার আমলের পদ্ধতি ব্যবহার করা হচ্ছে। গুড়-পাটালি তৈরিতে আধুনিকতা আনা গেলে এটিও রপ্তানি পণ্যের তালিকায় স্থান পেতো বলে মনে করেন চাষিরা। অবশ্য খেজুর গাছ অন্যান্য গাছের ‌মত রোপন করা‌ বা সা‌‌ র মাটি দিতে হয় না। প্রাকৃতিক নিয়মেই মাঠে পড়ে থাকা খেজুরের আটি, বিচি থেকে চারা জন্মায়। সৃষ্টি হয় খেজুরের বাগান। বর্তমান খেজুর গাছ ইট ভাটার জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ায় বেশ আগের থেকে এ অঞ্চলে গুড়, পাটালির উৎপাদন বহুলাংশে কমে গেছে।
এখন আর আগের মত মাঠ ভরা খেজুর বাগানও নেই, নেই মাঠে মাঠে রস জ্বালানো চুলা। যা আছে তা নিতান্তই কম। পর্যাপ্ত গুড়, পাটালি পাওয়া দুষ্কর। মৌসুমে যা তৈরী হয় তা রীতিমত কাড়াকাড়ি শুরু হয়ে যায়। আবহমান কাল থেকে তাই বাংলায় নবান্নের উৎসব পালনে খেজুরের গুড়ের কদর বেশি। বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে গাছিরা গাছ পরিস্কার বা তোলা চাচার উপকরণ গাছি দা দড়ি তৈরি সহ ভাঁড়, মাটির ঠিলে ক্রয় ও রস জ্বালানো জায়গা ঠিক করা সহ বিভিন্ন কাজে রয়েছে ব্যতিব্যস্ত। তবে ইট ভাটায় খেজুর গাছ জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার সরকারী ভাবে নিষিদ্ধ না করলে এক সময় খেজুরের গাছ পরবর্তিতে প্রজন্মের কাছে শুধু আরব্য উপন্যাসের গল্পের মতো পরিণতি হবে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019
Bengali English