১৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন, ৩রা শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি, শনিবার, ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নোটিশ
জরুরী ভিত্তিতে কিছুসংখ্যক জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ- ০১৭১২৫৭৩৯৭৮
সর্বশেষ সংবাদ :
ঈদের দিন স্ত্রী-সন্তানকে মাংস কিনে খাওয়াতে না পারায় চিরকুট লিখে আত্মহত্যা বানারীপাড়ায় সাকুরা পরিবহনের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানান আগৈলঝাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আলম চাঁদ বৈসাবির রঙ লেগেছে পাহাড়ে হ্রদের জলে ভাসানো হলো রঙ-বেরঙের ফুল দর্শনায় ঈদের দিন মোটরসাইকেলের পাল্লাপাল্লিতে কিশোরের মৃত্যু ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই ইসরায়েলে ইরানের হামলা রাজধানীতে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে পাহাড়ি প্রাণের উৎসব বৈসাবি পালিত এলাকায় মসজিদ ছিল না, জমি কিনে মসজিদ বানালেন সবজি বিক্রেতা ঈদের দিন পাহাড়ে ঘুরতে এসে প্রাণ গেল তিন বন্ধুর ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বিমান দুর্ঘটনা, রানওয়েতে পুড়ে মৃত্যু হয় ৫৮৩ জনের
ফ্লোরিডায় ১৬ বছরের আগে ফেসবুক চালাতে নিষেধাজ্ঞা

ফ্লোরিডায় ১৬ বছরের আগে ফেসবুক চালাতে নিষেধাজ্ঞা

অনলাইন ডেস্ক

কিশোর-কিশোরীদের মানসিক স্বাস্থ্য বিবেচনায় সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারে বয়সসীমা নির্ধারণ করে বিলে স্বাক্ষর করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার গভর্নর রন ডেসানতিজ। এর ফলে ১৪ বছরের নিচে কেউ ফেসবুক ব্যবহার করতে পারবে না। ১৪ অথবা ১৫ বছরের কেউ যদি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করতে চায় তাহলে তাদের বাবা-মায়ের অনুমতি নিতে হবে। খবর রয়টার্সের

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই আইনটি আগামী বছর অর্থাৎ ২০২৫ সালের ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর করা হবে। নতুন এই নিয়মের ফলে ১৪ এবং ১৬ বছরের নিচে যারা রয়েছে তাদের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হবে। তবে এদের মধ্যে যদি কারোর পিতামাতার অনুমতি থাকে তাহলে সেগুলো বন্ধ রাখা হবে না। থার্ড পার্টি ভেরিফিকেশন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অপ্রাপ্তদের বয়স যাচাই করা হবে।

রাজ্যের রিপাবলিকান নেতৃত্বাধীন আইনসভা ফেব্রুয়ারিতে যাদের বয়স ১৬ বছরের নিচে তাদের ফেসবুক ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। কিন্তু ডেসানতিজ নামের একজন রিপাবলিক সেই বিলে চলতি মাসে ভেটো দেন। তিনি দাবি করেন এর ফলে পিতামাতার অধিকার খর্ব হবে।

গভর্নর ডেসানতিজ এক বিবৃতিতে বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম শিশুদের জন্য বিভিন্নভাবে ক্ষতির কারণ হতে পারে। এক্ষেত্রে আইনের ফলে পিতা-মাতা এখন তাদের ছেলেমেয়েদের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের খারাপ প্রভাব থেকে রক্ষা করতে পারবে।

এ আইনের সমর্থনকারীরা বলেছেন, যেসব কিশোর-কিশোরীরা অতিরিক্ত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে এবং মানসিক উদ্বিগ্নতায় ভুগে তাদের সমস্যা দূর করতে কার্যকরী ভূমিকা রাখবে।

তবে সমালোচকরা বলছেন, নতুন বিলটি যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের প্রথম সংশোধনী আইনের পরিপন্থি। এর মাধ্যমে কিশোর-কিশোরী এবং তাদের পিতামাতার মতপ্রকাশের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হয়েছে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019