২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৫১ অপরাহ্ন, ১২ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি, শুক্রবার, ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নোটিশ
জরুরী ভিত্তিতে কিছুসংখ্যক জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ- ০১৭১২৫৭৩৯৭৮
সর্বশেষ সংবাদ :
মায়ের জানাজায় অংশ নিতে ফিরলেন ইতালি থেকে, সড়কে ঝরল প্রাণ অনিবন্ধিত সব স্বাস্থ্যকেন্দ্র দ্রুত বন্ধ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঝালকাঠি’তে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) এর উদ্যোগে প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বিএমপি কমিশনার এর অংশগ্রহণ বিরামপুর খানপুর ইউনিয়নে স্বল্প মূল্যে টিসিবির পন্য বিতরনের শুভ উদ্বোধন দামুড়হুদার কুড়ুলগাছি শিক্ষক – অভিভাবক সমাবেশ সকলকে সমন্বয়ের মাধ্যমে শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করতে হবে, -জেলা প্রশাসক তেল-গ্যাস উত্তোলনে বিদেশিদের বিনিয়োগের আহ্বান জানালেন প্রধানমন্ত্রী প্রতারণার অভিযোগে স্বামীসহ যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিম গ্রেপ্তার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত জিকে শামীমের জামিন বাংলাবান্ধা-পঞ্চগড় মহাসড়কে বালু-পাথর ব্যবসা লোড আনলোডে জনদূভোর্গ সড়ক দূর্ঘটনা আশংকা
নতুন করে ইয়াবার আনাগোনা বৃদ্ধি পেয়েছে।। ৫ জন আটক

নতুন করে ইয়াবার আনাগোনা বৃদ্ধি পেয়েছে।। ৫ জন আটক

দীর্ঘদিন ধরে চট্রগ্রামের সহ কক্সবাজারে নতুনভাবে ইয়াবাসহ অসামাজিককার্যকলাপে দিন দিন বৃদ্ধি পেয়েছে । আর এ সকল সাথে অসাধু পুলিশের গোপন মিশন রয়েছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। বিভিন্ন হোটেল কামরায় নীরব দেহ ব্যবসা সম্প্রসারণ করছে এক শ্রেণির ভ্রমণ দেহ ব্যবসায়ী তরুণ -তরুণীরা। এদিকে গতি ২১ অক্টোবর১৯ অভিযানের মাধ্যমে ৫ জনকে গ্রেফিতার করেছেন।

র‌্যাবের সহকারী পুলিশ সুপার কাজী তারেক আজিজ বলেন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃত পাঁচজনের মধ্যে চারজন বাংলাদেশি আর অন্যজন ভারতীয় নাগরিক। বাংলাদেশি চারজন হলেন রোজিনা (৫২) ও সাইমা (২৮) সম্পর্কে মা মেয়ে। শাহনাজ (৫০), সুমাইয়া ও (২১) এরাও সম্পর্কে মা মেয়ে, কুমল কর (২৮)ভারতীয় নাগরিক।

র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, ‘এরা পাঁচজন কক্সবাজার থেকে ইয়াবা নিয়ে ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছিলো। বাংলাদেশি চারজনই ঢাকার বাসিন্দা। অন্যদিকে ভারতীয় নারীর মাধ্যমে তারা ইয়াবা ভারতে পাচার করে। এসব কাজ তারা বহুবার করেছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়।

তাদের জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব কর্মকর্তা জানান, ভারতীয় নারী কুমল কর বাংলাদেশি রোজিনার সম্পর্কে ভাইয়ের মেয়ে। রোজিনা বাংলাদেশে বিয়ে করে এসে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে। তবে ভারতের সাথে যোগাযোগ করে তারা ইয়াবা পাচার করে আসছে। কুমল কর গত ২৭ সেপ্টেম্বর দেশে এসেছে। গত (১৭ অক্টোবর) তারা কক্সবাজার গিয়ে ইয়াবা কিনে ঢাকায় চলে যাচ্ছিল।

অপরদিকে,বি-বাডিয়ার সানিয়া আক্তার অনি চট্রগ্রামেরসহ কক্সবাজারে আসলে সুমাইয়া সাথে ইয়ারসহ অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত রয়েছে বলে জানা গেছে। সম্প্রতিকালে সোনিয়া আক্তার অনি,নিঝুম চট্টগ্রাম খুলসী থানায় ইয়াবাসহ আটক করলেও পুলিশের গোপন রহস্য কারনে মুচলেকা দিয়ে চেড়ে দেয় বলে অভিযোগ জানা গেছে।যদিও পুলিশ এঘটনা অস্বীকার করে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019