২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:০৯ পূর্বাহ্ন, ১৪ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি, রবিবার, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নোটিশ
জরুরী ভিত্তিতে কিছুসংখ্যক জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ- ০১৭১২৫৭৩৯৭৮
সর্বশেষ সংবাদ :
ঝালকাঠিতে বীর মুক্তিযোদ্ধার গম চাষে নজর কেড়েছে তরুণ উদ্যোক্তাদের বাবুগঞ্জে আশার পক্ষ থেকে চিৎিসা সহায়তা প্রদান এসিল্যান্ড পরিচয়ে ব্যবসায়ীদের কাছে টাকা দাবি বরিশালে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণের দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রীয় পদক পাচ্ছেন কেএমপি’র তিন পুলিশ কর্মকর্তা ফেসবুকে ‘বলার ছিল অনেক কিছু’ লিখে ফাঁস দিল এসএসসি পরীক্ষার্থী বানারীপাড়ায় অবসরপ্রাপ্ত পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তা আব্দুল মতিন চৌধুরীর ইন্তেকাল বানারীপাড়ায় বন্দর মডেল স্কুলে তিনদিন ব্যাপি বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত শিক্ষক-কর্মচারী কো-অপরেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়ন লিঃ এর ১৭তম বার্ষিক সাধারণ সভা আগৈলঝাড়ায় অনুষ্ঠিত মুজিব”একটি জাতির রুপকার প্রদর্শিত হলো বরিশালের গৌরনদী
পটুয়াখালীর বাউফলে সপ্তম শ্রেণীর এক মাদ্রাসার ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষন।

পটুয়াখালীর বাউফলে সপ্তম শ্রেণীর এক মাদ্রাসার ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষন।

পটুয়াখালীর বাউফলে সপ্তম শ্রেণীর এক মাদ্রাসার ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়াগেছে। ওই ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে মানিক সরদার (৪০) নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে বাউফল পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড এলাকার মৃত আফতেব আলী সরদারের ছেলে।
মঙ্গলবার (২২অক্টোবর) দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে স্থানীয় জনগনের সহায়তায় বাউফল থানা পুলিশ মানিক সরদারকে পৌর শহরের ৬ নং ওয়ার্ড থেকে গ্রেফতার করে।
বাউফল থানা সূত্রে জানা গেছে, উত্তর দাশপাড়া দাখিল মাদ্রাসার ৭ম শ্রেণীর ওই ছাত্রী ঘটনার দিন সন্ধ্যায় নিজ বাড়ি থেকে প্রাইভেট পড়ার জন্য যাচ্ছিল। ওই সময় একই এলাকার মৃত আফতেব আলী সরদারের ছেলে মানিক সরদার তাকে ডেকে স্থানীয় মোস্তফা নামের এক ব্যক্তির রান্না ঘরে নিয়ে মুখ বেধে ধর্ষণ করে। ওই ছাত্রীর বাবা ঘটনাটি জানার পরে বাউফল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ৯(ক) ধারায় একটি মামলা করেন।
বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি) খন্দোকর মোস্তাফিজুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত ধর্ষক মানিককে বুধবার সকালে পটুয়াখালী আদালতে এবং ধর্ষিতাকে মেডিকেল টেস্টের জন পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019