২৫ Jul ২০২৪, ০১:১৭ পূর্বাহ্ন, ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি, বৃহস্পতিবার, ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নোটিশ
জরুরী ভিত্তিতে কিছুসংখ্যক জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ- ০১৭১২৫৭৩৯৭৮
টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় অন্তঃসত্ত্বা মা ও চার বছরের মেয়েকে জবাই করে হত্যা।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় অন্তঃসত্ত্বা মা ও চার বছরের মেয়েকে জবাই করে হত্যা।

আব্দুল্লাহ আল মামুন পিন্টু টাঙ্গাইল থেকেঃটাঙ্গাইল সদর থানার পৌর এলাকার ৯নং ওয়ার্ডের ভাল্লুককান্দী পশ্চিম পাড়া গ্রামের আলামিনের বাড়ীতে ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা মা লাকী বেগম (২২) ও তার চার বছরের শিশু কন্যা হুমায়রা আক্তার আলিফাকে কুপিয়ে ও জবাই করে হত্যা করেছে কেবা কারা।
রোববার দিবাগত আনুমানিক রাত পৌনে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।স্থানীরা জানান, নিহত গৃহবধু লাকীর স্বামী আলামিন এলাকার আসাদ মার্কেটে মোবাইল ফোন ফ্যাক্সের ও বিকাশ এর দোকান করেন। ব্যবসার কারণে প্রায়ই তিনি মধ্যরাতে বাড়িতে ফিরতেন।এছাড়াও ওই বাড়িতে নিহত মা ও মেয়ে আর আলামিন বসবাস করতেন। এ সুযোগ নিয়ে কেবা কারা তার স্ত্রী ও কন্যাকে হত্যার পর তার ঘরে থাকা প্রায় ৮ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যান।এছাড়াও আরো গত ৯/১০/১৯ইং তারিখ সন্ধা ৭টার দিকে আলামিন তার বাড়ি থেকে তার মামাতো ভাই এবং তার বন্ধু জনৈক রহিজ উদ্দীনকে দিয়ে তার স্ত্রীর কাছ থেকে বাড়িতে থাকা ৯লক্ষ টাকা থেকে ১লক্ষ টাকা তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আনেন।তার ৩দিন পর এই হত্যাকান্ড ঘটনাটি ঘটে এটা খুন ডাকাতি তারা জানায়।নিহত শিশু কচুয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণীতে পরতো।
নিহত লাকীর স্বামী আলামিন জানান, রাত প্রায় ১২টার দিকে বাড়িতে এসে দেখেন যে তার বাড়ির গেটটি খোলা রয়েছে। এছাড়াও ঘরের ভিতরে জোড় শব্দে টেলিভিশন চলছে। এ সময় তিনি বাড়ির ভিতরে ঢুকতেই প্রথমে রক্তাক্ত অবস্থায় তার শিশু কন্যা হুমায়রা আক্তার আলিফাকে মাটি পরে থাকতে দেখে।এবং চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে এসে বাড়ির উঠানে রক্তাক্ত অবস্থায় তার স্ত্রী লাকীকেও পরে থাকতে দেখেন। পরে তারা মাটিতে পরে থাকা স্ত্রী কন্যার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে পুলিশে খবর দেয়।পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে পোষ্টমর্টেম করার জন্য মর্গে পাঠায়।এখন এপর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019