২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:২৯ অপরাহ্ন, ১২ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি, শুক্রবার, ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নোটিশ
জরুরী ভিত্তিতে কিছুসংখ্যক জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ- ০১৭১২৫৭৩৯৭৮
সর্বশেষ সংবাদ :
মায়ের জানাজায় অংশ নিতে ফিরলেন ইতালি থেকে, সড়কে ঝরল প্রাণ অনিবন্ধিত সব স্বাস্থ্যকেন্দ্র দ্রুত বন্ধ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঝালকাঠি’তে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) এর উদ্যোগে প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বিএমপি কমিশনার এর অংশগ্রহণ বিরামপুর খানপুর ইউনিয়নে স্বল্প মূল্যে টিসিবির পন্য বিতরনের শুভ উদ্বোধন দামুড়হুদার কুড়ুলগাছি শিক্ষক – অভিভাবক সমাবেশ সকলকে সমন্বয়ের মাধ্যমে শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করতে হবে, -জেলা প্রশাসক তেল-গ্যাস উত্তোলনে বিদেশিদের বিনিয়োগের আহ্বান জানালেন প্রধানমন্ত্রী প্রতারণার অভিযোগে স্বামীসহ যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিম গ্রেপ্তার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত জিকে শামীমের জামিন বাংলাবান্ধা-পঞ্চগড় মহাসড়কে বালু-পাথর ব্যবসা লোড আনলোডে জনদূভোর্গ সড়ক দূর্ঘটনা আশংকা
এবার মিসা সওদাগার জন্য মুখ খুললেন পপি

এবার মিসা সওদাগার জন্য মুখ খুললেন পপি

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামী ২৫ অক্টোবর। নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই কাদা ছোড়াছুড়ি বাড়ছে। গত নির্বাচনে ক্ষমতায় আসেন মিশা সওদাগর ও জায়েদ খান প্যানেল। তাদের প্যানেল থেকে কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন চিত্রনায়িকা পপি। শুরুতে সম্পর্কটা মধুর থাকলেও এখন বাতাস বইছে উল্টো দিকে।

সম্প্রতি সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর একটি বেসরকারি টেলিভিশনে সাক্ষাৎকারে জানান, অস্বচ্ছল শিল্পীদের তহবিল গঠনের জন্য আয়োজিত অনুষ্ঠান থেকে ৫০ হাজার করে টাকা নিয়েছেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস, রিয়াজ ও পপি। এ নিয়ে তিনি ক্ষোভও প্রকাশ করেন। তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী পপি।

পপি বলেন, ‘কে টাকা নিয়েছে? এর কোনো প্রমাণ কি তাদের কাছে আছে? শুধু বললেই হয় না। এগুলো মিথ্যে কথা। সমিতির জন্য আমি অনেক অনুষ্ঠান করেছি। শুধু আমিই না রিয়াজ, ফেরদৌস, পূর্ণিমা, অপুসহ আরও অনেকেই এসব অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন। এগুলো থেকে এক টাকাও পারিশ্রমিক নিইনি আমি। শুধু তাই নয়, সঙ্গে থাকা সহশিল্পীদের টাকাও আমি নেইনি। সমিতির জন্য কাজ করছি, এই ভেবে কোনো কথাও বলিনি।’

সঙ্গে যোগ করে পপি আরও বলেন, ‘দুই বছরে অনেক কিছু দেখেছি। যখন কোথাও থেকে টাকা আনার দরকার হয়, তখন শিল্পীদের ডাক পড়ে। এরপর আর কোনো খবর নেই তাদের। সমিতির পক্ষ থেকে শিল্পীদের টাকা দেওয়ার সময় দেখি, শুধু তাদের ছবি। সেই ছবি দিয়ে ফেসবুক ভরিয়ে ফেলে তারা। এভাবে কী শিল্পীদের সহযোগিতা করার দরকার আছে। আমি মনে করি, এভাবে প্রচার করা মানে শিল্পীদের ছোট করা।’

ক্ষোভ নিয়ে পপি আরও বলেন, ‘দুই বছরে অনুষ্ঠান করে অনেক টাকা ফান্ডে এসেছে। সে টাকা কোথায়, কীভাবে খরচ করা হয়েছে, আমরা কেউ তা জানি না। জানতে চাই, সেই টাকা কোথায়? দুই বছরে লাখ লাখ টাকা এসেছে সমিতিতে, হিসাব চাই।’

নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘গত দুই বছর সমিতির সঙ্গে থেকে অনেক কিছু দেখেছি ও শিখেছি। আসলে এসব দেখে নির্বাচন করার ইচ্ছাটা মরে গেছে।’

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019