২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:১৫ অপরাহ্ন, ১৪ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি, রবিবার, ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নোটিশ
জরুরী ভিত্তিতে কিছুসংখ্যক জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ- ০১৭১২৫৭৩৯৭৮
সর্বশেষ সংবাদ :
ঝালকাঠিতে বীর মুক্তিযোদ্ধার গম চাষে নজর কেড়েছে তরুণ উদ্যোক্তাদের বাবুগঞ্জে আশার পক্ষ থেকে চিৎিসা সহায়তা প্রদান এসিল্যান্ড পরিচয়ে ব্যবসায়ীদের কাছে টাকা দাবি বরিশালে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণের দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রীয় পদক পাচ্ছেন কেএমপি’র তিন পুলিশ কর্মকর্তা ফেসবুকে ‘বলার ছিল অনেক কিছু’ লিখে ফাঁস দিল এসএসসি পরীক্ষার্থী বানারীপাড়ায় অবসরপ্রাপ্ত পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তা আব্দুল মতিন চৌধুরীর ইন্তেকাল বানারীপাড়ায় বন্দর মডেল স্কুলে তিনদিন ব্যাপি বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত শিক্ষক-কর্মচারী কো-অপরেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়ন লিঃ এর ১৭তম বার্ষিক সাধারণ সভা আগৈলঝাড়ায় অনুষ্ঠিত মুজিব”একটি জাতির রুপকার প্রদর্শিত হলো বরিশালের গৌরনদী
ফেসবুকে শিক্ষামন্ত্রীর আবেগঘন স্ট্যাটাস

ফেসবুকে শিক্ষামন্ত্রীর আবেগঘন স্ট্যাটাস

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আ’বরা’র ফাহাদ হ’ত্যা’কাণ্ড নিয়ে ফেসবুকে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপুমনি।আজকের ক্রাইম নিউজ পাঠকদের জন্য ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবুহ তুলে ধরা হলো-
আমার সন্তানের হাতের যে জায়গাটা তোমাদের আঘাতে আঘাতে নীল হয়ে আছে। তোমরা জানো বাবারা? ঠিক ওখানটাতেই ওকে ধরে আমি স্কুলে নিয়ে যেতাম।ওই যে তোমাদের কিল ঘুষিতে ও অমন করে চোখ বন্ধ করে আছে। বাবা তোমরা কি জানো? ও ঘুমুলেই আমি চোখে চুমু খেতাম, চাইতাম আরেকটু ঘুমিয়ে থাকুক।

কিন্তু… কিন্তু তোমারা তো ওকে চিরতরে ঘুম পারিয়ে দিলে। যখন আমার উদরে ঢিবঢিব করে উঠেছিল একটা প্রাণ- দশমাস সে কী দূর্বিষহ যন্ত্রণা, তার পর কত নির্ঘুম রাত, তবুও যখন ওর মুখটা দেখলাম সব কষ্ট কোথায় যেন উড়ে গেলো!
আমার মনে ঘুরে বেড়াতো ঝলমলে সব স্বপ্ন, একদিন আমার ছেলেটা বিশ্বজয় করবে। তোমরা বুঝি জানতে আমার স্বপ্ন …? তাইতো মৃত্যু পরওয়ানা দিয়ে সারা দেশ জুড়ে জানিয়ে দিলে আমার সন্তানের নামটা..?আচ্ছা বাবারা মৃত্যুর সময় ওর কেমন লেগেছিল? আমার বাবা কি পানি খেতে চেয়েছিল? তোমারা কী কেউ ওর বুকের উপরে উঠেছিলে?

ওর মাথায় বাড়ি দিয়েছিলে রড দিয়ে? আহা!! বাবা আমি যদি একবার জানতাম.. বলতাম আমায় টুকরো টুকরো করে ফেলো কিন্তু আমার মানিককে আর মেরো না। ছোট্ট ছেলেটা আমার অন্ধকার বড্ড ভয় পেত, যদি এতটুকু করুনা হত তোমাদের, যদি তোমরা মানুষ হতে… বলতাম মেরো না.. আর মেরো না।

ওই গালে আমার অনেক চুমু, ঐ মুখে আমি কত নিজ হাতে খাইয়ে দিয়েছি, ঐ পিঠে সাবান দিয়ে গোসল করিয়েছি আমি, কত জড়িয়ে ধরেছি বুকে, মরে যাচ্ছে আমার ছেলেটা। বাবারা দোহাই লাগে- আর মেরো না.. মেরো না…

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019